যেসব কারণে কিডনি নষ্ঠ হয়!

কিডনি রোগের কারণ কি? বা কি কি কারণে কিডনি রোগ হয় বা কিডনি কেন নষ্ট হয়? এই প্রশ্ন গুলোর উত্তর জানার জন্য মানুষ উঠে পড়ে লেগেছে। কারণ বাংলাদেশের একটি সমিক্ষায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের প্রায় ২ কোটি মানুষ কিডনি রোগে আক্রান্ত। কিডনি রোগ এমন একটি

মারাত্মক রোগ, যাকে বলা হয়ে থাকে নিরব ঘাতক। এমন নামকরনের কারণ হচ্ছে কিডনির প্রায় ৭০-৮০ ভাগ নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর সাধারনত কিডনি রোগের লক্ষণ গুলো প্রকাশ পেয়ে থাকে। কোন মানুষের কিডনি যদি ২০ থেকে ৩০ ভাগও কাজ করে তাহলে চিকিৎসার মাধ্যমে সেই

মানুষটি সুস্থভাবে বেচে থাকতে পারবে কিন্তু যদি ভয়ঙ্কর রূপ ধারন করে তাহলে জীবন বাঁচানো সম্ভব হয়ে ওঠেনা। কিডনি নিরব ঘাতক হওয়ায় কিডনি রোগের কারণ অনেকেই জানার চেষ্টা করেন। অবশ্য প্রত্যেক সচেতন মানুষকেই কিডনি নষ্ট হওয়ার কারণ গুলো সম্পর্কে সাম্যক জ্ঞান রাখা জরুরী।

কি কি কারণে কিডনি রোগ হয়? কিডনি রোগ কেন হয়? কিডনি নষ্ট হওয়ার কারণ / কিডনি রোগের কারণ
১. দীর্ঘ সময় প্রসাব ধরে রাখা ২. কম পরিমাণ পানি পান করা ৩. অতিমাত্রায় লবন গ্রহণ করা ৪. অতিমাত্রায় প্রোটিন গ্রহণ ৫. নিয়মিত ব্যথানাশক ওষুধ সেবন ৬. কোমল পানীয় গ্রহণ ৭. ধূমপান করা ৮. অতিমাত্রায় ক্যাফেইন গ্রহণ ৯. রাতে কম ঘুমানো ১০. অতিমাত্রায় সোডা গ্রহণ করা

১১.অতিমাত্রায় অ্যালকোহল গ্রহণ ১২. মাত্রাতিরিক্ত পরিশ্রম করা ১৩. শরীরচর্চা না করা ১৪. ম্যাগনেসিয়ামের অভাব ১৫. ভিটামিন বি-৬ এর অভাব ১৬. হাই ব্লাড প্রেসার (উচ্চ রক্তচাপ) ১৭. ডায়াবেটিস ১৮. নেফ্রাইটিস ১৯. বংশগত কারণ ২০. সঠিক সময়ে চিকিৎসা না নেয়া

কিডনি নষ্ট হওয়ার কারণ / কিডনি রোগের কারণ
কিডনির প্রধান প্রধান কাজ গুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে শরীরে হরমোন উৎপাদন করা, রক্ত পরিশোধন করা, শরীর থেকে বজ্র বা অপ্রয়োজনীয় পদার্থ ছাকুনির মাধ্যমে বের করে দেয়া, ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করা, শরীরে খনিজ লবনের ভারসাম্য রক্ষা করা ইত্যাদি।

About Susmita Roy

Check Also

কিডনিতে পাথর হওয়া ঠেকাতে এই ৪টি উপায় অনুসরণ করুন

কিডনিতে পাথর হওয়া ঠেকাতে এই ৪টি উপায় অনুসরণ করুন

যে কোনও বয়সেই কিডনিতে পাথর হতে পারে। জীবনে ৪টি ছোট বদল এই আশঙ্কা অনেকটা কমিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *