চাল সংরক্ষণের সঠিক নিয়ম, আর হবে না পোকা ধরার সমস্যা!

ভারতীয় ও বাংলাদেশীয় পরিবারে এটি একটি সাধারণ ঐতিহ্য যে আমরা সারা বছরের জন্য রেশন সংরক্ষণ করি। বিশেষ করে, আমরা সারা বছরের জন্য গম, ডাল, চাল এবং তেলের মতো বার্ষিক শস্য সংগ্রহ করে রাখি কমবেশি। বাড়িতে এগুলো সংরক্ষণ করার সময় অনেক

সতর্কতা অবলম্বন করা হলেও দেখা গেছে অনেক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার পরও অনেক সময় চালে পোকা ধরে যায়। চালের কালো পোকা অনেক সময় এমন হয় যে চাল বেশি থাকলে তাতে পোকা ধরে। এমন অবস্থায় পোকা দূর করার পরও সে ভাত খেতে ভালো লাগে না। আসলে

চাল বেশিদিন মজুত করে রাখলে তাতে মাইটের মতো ছোট পোকা হয়ে থাকে। চালে পোকা এড়াতে ছোট ছোট টিপস অনুসরণ করতে হবে। আজ আমরা আপনাকে পোকামাকড় থেকে চালকে রক্ষা করার কিছু টিপস বলতে যাচ্ছি। আসলে দীর্ঘদিন চাল সংরক্ষণ করলে তাতে ছোট

পোকা পড়ে। এই পোকামাকড় থেকে চাল বাঁচাতে, ছোট টিপস খুব কার্যকর প্রমাণিত হতে পারে। যা নিচে লিখলাম-
১. নিমপাতা বা তেজপাতা ব্যবহার করুন নিমপাতায় কীটনাশক গুণ রয়েছে। এটি শস্য সংরক্ষণের একটি ঐতিহ্যগত উপায়ও বটে। পাত্রে চাল রাখার পর তাতে নিম পাতা ও কিছু তেজপাতা দিয়ে রাখুন। এতে মজুদকৃত চাল অনেকদিন নিরাপদ থাকবে। এতে চালের পোকার ঝুঁকিও দূর হবে। একমাস পর পর পাতা পরিবর্তন করলেই
২. বায়ুরোধী পাত্র ব্যবহার করুন অনেক সময় এক বস্তা চাল এনে সরাসরি বাক্সে রাখলেও চাল নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। পলিথিন বা

পাত্রে কখনোই চাল রাখবেন না। এগুলি সর্বদা বায়ুরোধী পাত্রে রাখা উচিত। বাতাসের কারণে চাল নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। একটি বায়ুরোধী পাত্র থাকলে এতে আর্দ্রতা আসার সম্ভাবনাও কমে যায়। এতে চাল রেখে দিয়ে অনেক দিন সংরক্ষণ করা যায়।
৩. চালের মধ্যে শুকনো লঙ্কা পাত্রে চাল রাখার পর অবশ্যই এতে ৬ থেকে ৭টি আস্ত শুকনো লঙ্কা রেখে দিন। এতে করে চাল অনেকদিন

পোকামাকড় থেকে নিরাপদ থাকবে। দুসপ্তাহ পর পর লঙ্কা পরিবর্তন করে দেবেন। পুরনো লঙ্কা রান্নার কাজে ব্যবহার করে নিতে পারবেন।
৪. কালো গোলমরিচের বীজ শুকনো লাল লঙ্কা না থাকলে চালে গোটা কালো মরিচের দানাও রাখতে পারেন। এতে চালে পোকাও হয় না। পোকামাকড়ের হাত থেকে চালকে রক্ষা করতে, লাল লঙ্কা ছাড়াও কালো মরিচের দানা ব্যবহার করা যেতে পারে তা কিন্তু অনেকেরই অজানা।
৫. ফ্রিজ ব্যবহার করুন অনেক সময় দেখা গেছে গরমের কারণেও চালে পোকা পড়ে। বেশি পরিমাণে চাল না থাকলে বায়ুরোধী পাত্রে ভরে

ফ্রিজে রাখতে পারেন। শীতলতার কারণে ধানে পোকা পড়বে না। এছাড়া পোকা যদি ধরে যায় তাহলে বায়ুরোধী পাত্রে ভরে ঢাকনা বন্ধ করে একদিনের জন্য ফ্রিজে রাখুন। পরের দিন তা বের করলে দেখবেন সব পোকা মরে গিয়েছে। তখন পোকা বেছে ফেলে দেবেন। আর এই চাল রান্নার আগে ভালো করে ধুয়ে সামান্য গরম জলে ১০ মিনিটের জন্য ভিজিয়ে রাখবেন। এতে করে কোন জীবাণু এতে থাকবে না আর স্বাদেও খারাপ হবে না।

About Susmita Roy

Check Also

৬টি সহজ টিপস, যা আমরা অনেকেই জানি না!

৬টি সহজ টিপস, যা আমরা অনেকেই জানি না!

1. সহজেই ভালো-খারাপ ডিম চেনার উপায় : শহরের এই কাজের চাপে বারে বারে দোকানে যাওয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *