Mutton Kebab: বাড়িতেই বানান লখনউ স্পেশাল গলৌটি কাবাব! শিখে নিন রেসিপি

লখনউয়ের নবাব আসাদ-উদ-দৌলা কাবাব প্রেমের জন্য পরিচিত ছিলেন, তাঁর রাজত্বকালে খানসামাদের দ্বারা এই স্বাদে ভরা গলৌটি কাবাব তৈরি হয়েছিল। নরম তুলতুলে চিকেন বা মটনের অসাধারণ স্বাদে ভরা কাবাবের গন্ধেই পেটে খিদে চলে আসবে। সঙ্গে পুদিনারা

চাটনির সঙ্গত। শুনেই অনেকেই মুখে জল চলে আসবে। কাবাবের কথা এলেই লখনউয়ের বিশেষ গলৌটি কাবাব যেন চোখের মধ্যে ভেসে ওঠে। নবাবদের রাজ্যের অলিতে গলিতে কাবাবের দোকানগুলি থেকে সুগন্ধ যেন স্বাদের চেয়ে বড় বেসামাল করে দেয়।আগেকার দিনে নবাবদের জন্য রাজকীয় হেঁসেল ছিল। লখনউয়ের নবাব আসাদ-উদ-দৌলা কাবাব প্রেমে মসগুল ছিলেন। হরেক রকমের কাবাবের

স্বাদ নিতে পছন্দ করতেন তিনি।তাঁর সময় কালে খানসামাদের নির্দেশ দেন এই বিখ্যাত গালৌটি কাবাব তৈরি করার। গালৌটির অর্থ হল নরম। এই কারণেই সুগন্ধ যুক্ত কাবাবে রয়েছে ভরপুর স্বাদের মিশ্রণ। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই কাবাবের আবিষ্কারের সময় এই এই সুস্বাদু আওয়াধি কাবাব তৈরিতে প্রায় ১৫০ রকমের মশলা ব্যবহার করা হয়েছিল। বছরের পর বছর ধরে এই কাবাবের রেসিপিতে বেশ কিছু টুইস্ট

এসেছে। বাড়িতে আরাম করে লখনউয়ের এই নবাবিয়ানা খানা যদি পেতে চান, তাহলে চটপট বানিয়ে ফেলুন এই রাজকীয় কাবাব। খুব সহজেই লখনউয়ের কাবাবের মত স্বাদ আনতে কীভাবে রান্না করবেন, কী কী উপকরণ লাগবে, তা দেখে নিন..

উপকরণ:
৫০০-৬০০ গ্রাম মাটন কিমা, ৩ চামচ পেঁপের পেস্ট, ২ চামচ জিরা পাউডার, ১ চামচ ধনে পাউডার, ১ চামচ গরম মশলা, ১ টা পেঁয়াজ, ২ চামচ আদা-রসুনের পেস্ট, আধ চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো, ২ চামচ বেসন, পুদিনা পাতা, ১ চামচ লেবুর রস, স্বাদ অনুযায়ী নুন, ২ চামচ ঘি, পরিমাণ মতো তেল।

পদ্ধতি:
একটা বড় পাত্রে মাটন কিমা নিয়ে তাতে লেবুর রস, পেঁপের পেস্ট, ঘি এবং পরিমাণ মতো নুন নিয়ে ভাল করে মেখে নিন। তারপর কম করে ১০ মিনিট ঢাকা দিয়ে রাখুন। প্রসঙ্গত, পেঁপে পেস্টটা যোগ করা হয়েছে মূলত কাবাবটা যাতে নরম হয়। এবার ব্লেন্ডারে পেঁয়াজ, আদা-রসুনের পেস্ট, বেসন, পুদিনা পাতা, ধনে গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো,গরম মশলা এবং গোলমরিচ নিয়ে ভাল করে মিশিয়ে

নিন। অল্প পরিমাণে জল মেশাতে পারেন । সবকটি উপকরণ ভাল করে মিশে গিয়েছে কিনা দেখে নিন। এবার সেই মিশ্রনটা কিমার উপর ঢেলে দিন। এবার ভাল করে মাখুন কিমাটা, যাতে সবকটি উপাদান কিমার সঙ্গে ঠিক মতো মিশে যাওয়ার সুযোগ পায়। কিমাটা মাখা হয়ে গেলে একটা পরিষ্কার পাত্রে সেটা ঢেলে নিয়ে কম করে ৮-১০ ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিতে হবে। যত বেশি সময় কিমাটা

ম্যারিনেট করবেন, ততই কিন্তু স্বাদ বাড়বে। ম্যারিনেট করার পর কিমাটা ফ্রিজ থেকে বার করে কিছু সময় স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে দিতে হবে। তারপর তা থেকে অল্প অল্প করে নিয়ে দুহাতের মাঝখানে রেখে চ্যাপ্টা আকার দিতে হবে। এবার মাঝারি মাপের একটা প্যানে পরিমাণ মতো তেল নিয়ে একটু গরম করে নিতে হবে। তেল ভাল রকম গরম হয়ে গেলে হালকা আঁচে কাবারের এক একটা দিক

কম করে ১০ মিনিট ফ্রাই করুন। উভয় পিঠ বাদামি রঙের হয়ে গেলে তেল ছেঁকে তুলে ফেলুন। এইভাবে প্রতিটা কাবাব ভেজে নেওয়ার পর পরিবেশন করতে হবে ধনে পাতা-পুদিনার চাটনির সঙ্গে।

About Susmita Roy

Check Also

কলা পাতায় এইভাবে তালের পিঠা বানালে স্বাদ হয় দুদার্ন্ত!

কলা পাতায় এইভাবে তালের পিঠা বানালে স্বাদ হয় দুদার্ন্ত! শিখে নিন রেসিপি

তালের সুমিষ্ট স্বাদ আর ঘ্রাণ বেশিরভাগের কাছেই পছন্দের। সুস্বাদু এই ফল দিয়ে তৈরি করা যায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.