ঠোঁটের চামড়া ওঠা ও ফাটা রোধের দুর্দান্ত ৩ টি ঘরোয়া কার্যকর উপায়!

শীতকাল অনেকের কাছে খুব পছন্দের ঋতু হলেও, এই সময় ত্বকে কিছু সমস্যা দেখা দেয়। যেমন- ঠোঁট ফাটা, ত্বকের খসখসে ভাব ও শুষ্কতা ইত্যাদি। বিশেষ করে শীতে ঠোঁটের চামড়া ওঠা ও ফাটার সমস্যা অনেককেই বেশ ভুগিয়ে থাকেন। বারবার ঠোঁট শুষ্ক হওয়ায় লিপজেল

বা বাম ব্যবহার করলেও কিছুক্ষণ পর তা গায়েব হয়ে যায় ঠোঁট থেকে। পরবর্তীতে আবারো ঠোঁট হয়ে পড়ে শুষ্ক। তাই শীত আসতেই ঠোঁট ভালো রাখতে ব্যবহার করুন স্ক্রাব। এজন্য ঘরেই তৈরি করে নিন লিপ স্ক্রাব। নিয়মিত ঠোঁট স্ক্রাব করার ফলে মৃতকোষ দূর হবে। ফলে চামড়া

ওঠার সমস্যা আর থাকবে না। আবার ঠোঁট ফাটাও রোধ হবে। প্রতিদিন না হলেও সপ্তাহে অন্তত দুবার ঠোঁট ভালো রাখতে স্ক্রাব করা জরুরি। এজন্য খুব সহজেই ঘরে তৈরি করতে পারবেন লিপ স্ক্রাব। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক তিন ধরনের লিপ স্ক্রাব তৈরি পদ্ধতি-

1. ব্রাউন সুগার স্ক্রাব- ব্রাউন সুগার শরীরের জন্যও যেমন উপকারী ঠিক তেমনই ত্বক এক্সফোলিয়েটর হিসেবেও কাজ করে। এটি গ্লাইকোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা ত্বক এক্সফোলিয়েশন করে। এতে আরো আছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য, ঠোঁটকে করে মসৃণ ও উজ্জ্বল। এই স্ক্রাব তৈরি করতে লাগবে ব্রাউন সুগার, মধু ও নারকেল তেল। ১ টেবিল চামচ বাদামি চিনির সঙ্গে আধা টেবিল চামচ মধু ও তেল মিশিয়ে নিন। তারপর

এই মিশ্রণ ঠোঁটে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করুন। তবে বেশি জোরে জোরে ঘষবেন না। আলতো হাতে ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ঠোঁট কতটা নরম হয়ে গেছে। এরপর ঠোঁটে লিপজেল ব্যবহার করুন।
2. গ্রিন টি স্ক্রাব- গ্রিন টি স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ, হওয়ায় ত্বক দূষণমুক্ত করে। এজন্য গ্রিন টির সঙ্গে আধা টেবিল চামচ টকদই, সমপরিমাণ অলিভ অয়েল ও চিনি মিশিয়ে নিন। ব্যাস তৈরি গ্রিন টি স্ক্রাব। এবার এই মিশ্রণ ঠোঁটে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ

করুন। দেখবেন ঠোঁটের মৃতকোষ উঠে যাবে। ফলে ঠোঁটের চামড়াও আর উঠবে না আর ফোঁটও ফাটবে না।
3. কফি স্ক্রাব- কফি দিয়ে রূপচর্চা বিষয়টি সবারই জানা। কফি সত্যিই ত্বকের যত্নে দুর্দান্ত কাজ করে। কফি একটি চমৎকার এক্সফোলিয়েটর। ঠোঁটের উজ্জ্বলতা ও কোমলতা বাড়ায় এটি। ক্যাফেইন রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে, ফলে ঠোঁটের গোলাপি আভা ফিরে আসে। কফি স্ক্রাব তৈরি করতে নারকেল তেল বা অলিভ অয়েলের সঙ্গে কফি পাউডার মিশিয়ে নিন। এরপর ঠোঁট স্ক্রাব করুন। নিয়মিত কফি স্কাব ব্যবহারে ত্বকের কালচে ভাব দূর হবে, ঠোঁটের চামড়া ওঠা ও ফাটাও রোধ হবে।

মনে রাখা জরুরি
সব সময় সঙ্গে একটি লিপ বাম বা লিপ জেল রাখুন। ঠোঁট শুষ্ক হতেই লিপ বাম ব্যবহার করুন। ঠোঁটের শুষ্কতা রোধে সব সময় ঠোঁট চাটা এড়িয়ে চলুন। এটি ঠোঁট ফাটা সমস্যার মূল কারণ হতে পারে। এসব স্ক্রাব যখন ব্যবহার করবেন ঠিক তার আগেই তৈরি করে নেবেন। তৈরি করে বেশিদিন ফ্রিজে রাখলে এর কার্যকারিতা হারাবে। কখনো ঠোঁটে মানহীন লিপস্টিক ব্যবহার করবেন না। এতে ঠোঁট কালচে হয়ে যায় ও চামড়া উঠতে পারে। বিশেষ করে শীতে ঠোঁটে ম্যাট লিপস্টিক ব্যবহাপর করবেন না।

About Susmita Roy

Check Also

দাঁত ভালো রাখার ৭টি সহজ উপায়

দাঁত ভালো রাখার ৭টি সহজ উপায়

দাঁতের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে নিয়মিত এর যত্ন নিতে হবে। বিভিন্ন খাদ্য ও পানীয় থেকে কোটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.