সিঙ্কের পানি আটকে যাওয়া, তেল চিটচিটে ভাব ও দুর্গন্ধ দূর করার উপায়

আপনাদের জন্য এখন দেওয়া হচ্ছে একটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ টিপস। আমি নিশ্চিত এই টিপসটি সবারই অনেক কাজে দেবে। অনেকের বাড়িতেই সবচাইতে নোংরা ও দুর্গন্ধে ভরা স্থানটি হচ্ছে রান্নাঘরের সিঙ্ক।যদিও হওয়ার কথা ছিল ঠিক উল্টো। এই রান্নাঘরের সিঙ্ক হওয়ার কথা

সবচাইতে পরিষ্কার, কারণ এখানেই থালা-বাসন পরিষ্কার করা থেকে শুরু করে খাবার-দাবার ধোয়ার কাজটি পর্যন্ত করা হয়। সিঙ্ক যদি থাকে নোংরা, তাহলে খাবারও হবে নোংরাআজ থাকছে এমন কিছু টিপস, যেগুলো মেনে চলা খুব সহজ। এগুলো মেনে চললে আপনার রান্নাঘরের

সিঙ্কে কখনো পানি আটকে যাবে না, কখনো তেল চিটচিটে ভাব বা বাজে দাগ পড়বে না, দুর্গন্ধ হবে না, পাইপে তেলাপোকার বসতি হবে না, পরিষ্কারের জন্য কাজের বুয়া কিংবা মিস্ত্রির ওপরেও নির্ভর করে থাকতে হবে না। চলুন, জেনে নিই টিপসগুলো-

সিঙ্কে কোনো অবস্থাতেই কোনো ময়লা বা এঁটোকাঁটা ফেলবেন না। এই ভুলটি প্রায় সকলেই করেন। ফলে সিঙ্কের পাইপে জমা হয় দুনিয়ার আবর্জনা, খাবার অবশিষ্ট। আর সেগুলো পঁচে গিয়ে ছড়ায় বাজে দুর্গন্ধ, হয় তেলাপোকার আস্তানা। প্লেট বা থালা-বাসন ধোয়ার আগে অবশিষ্ট

এঁটোকাঁটা বা খাদ্য উপাদান ভালো করে তুলে নিন, তারপর বাসন পরিষ্কার করুন। খাদ্যের উচ্ছিষ্ট ময়লা ফেলার ঝুড়িতে ফেলুন প্লাস্টিকের ব্যাগে মুখ আটকে, সিঙ্কে ফেলবেন না। প্রতিদিন কাজের শেষে এক টুকরো লেবু সিঙ্কে ঘষে নিন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন। এই

কাজটি প্রত্যেক দিন করলে কখনোই সিঙ্কে জং বা ময়লার দাগ ধরবে না। পুরানো টুথব্রাশগুলো রেখে দিন। সপ্তাহে একদিন ১০ মিনিট সময়
করে গরম পানি ও কাপড় ধোয়ার গুঁড়ো সাবান মিশিয়ে সিঙ্ক পরিষ্কার করুন টুথ ব্রাশগুলোর সাহায্যে। এতে সিংকে তেল চিটচিটে ভাব জমতে পারবে না। চা পাতা, চুল, গুঁড়ো মশলা, ময়দা, পেঁয়াজের খোসা ইত্যাদিও সিঙ্কে ফেলবেন না। গরম কোনো কিছু বা ফুটন্ত গরম পানি সিংকে

ঢালবেন না, এতে পাইপ ফেটে যাবে। সপ্তাহে একদিন বেকিংসোডা সিঙ্কে ও পাইপের ভেতরে দিন। এরপর এক কাপ সাদা ভিনেগার ঢেলে
দিন। এভাবে সারা রাত রাখুন। সকালে মাঝারি কুসুম গরম পানি ঢেলে দিন। এতে সিঙ্কের লাইন কখনো আটকে বা জ্যাম হয়ে যাবে না। তেল-
চর্বি জমে থাকলে তা পরিষ্কার হয়ে যাবে। লাইন ইতিমধ্যেই জ্যাম হয়ে থাকলেও এই কাজটি করুন। সপ্তাহে দুদিন বা রোজ, সমস্যার ওপরে

ভিত্তি করে। দেখবেন লাইন ক্লিয়ার হয়ে যাবে। বাজার থেকে আনা ফল-সবজি সিঙ্কে এনে ধোবেন না। কারণ এগুলোর গায়ে প্রচুর মাটি লেগে
থাকে যা লাইনে গেলে জ্যাম হয়ে যাবে। প্রথমে ফল-সবজি-শাক থেকে মাটি ভালো করে ঝেড়ে নিন। তারপর একটি গামলায় পানি নিয়ে এগুলো ধুয়ে নিন। দেখবেন গামলার নিচে বালি ও মাটির তলানি জমে রয়েছে। এটা সিঙ্কে না ফেলে ময়লার বাক্সে ফেলুন। সিঙ্কের মুখে

কয়েকটি ন্যাপথালিন রাখুন। এতে তেলাপোকা বা অন্য পোকা সিঙ্কে বাসা বাঁধতে পারবে না। মাঝে মাঝেই সিঙ্কের লাইনে তেলাপোকা মারার ওষুধ স্প্রে করুন। রান্নাঘর পরিষ্কার রাখার একটি বড় অংশ হচ্ছে সিঙ্ক পরিষ্কার রাখা। এই সিঙ্ক পরিষ্কারের সাথে পরিবারের সকলের স্বাস্থ্য জড়িত, এটা কখনো ভুলবেন না।

About Susmita Roy

Check Also

These signs can tell whether the fetus is a boy or a girl

গর্ভের সন্তান ছেলে না মেয়ে এই ১১টি লক্ষণে বুঝতে পারবেন

প্রতিটি নারীর জীবনেই একটি বিশেষ সময় প্রেগন্যান্সির এই নয় মাস। নিজের শরীরে একটা প্রাণের তিলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.