এই ৬টি লক্ষণে বুঝবেন আপনার শরীরে বাসা বাঁধছে থাইরয়েড!

আমাদের গলার স্বরযন্ত্রের দুই পাশে বিশেষ গ্রন্থি রয়েছে। এই গ্রন্থিকে বলা হয় থাইরয়েড। আমাদের শ’রীরের অত্যাবশ্যকীয় হরমোন উৎপাদন করে থাইরয়েড। শ’রীরের জন্য এই হরমোনের একটি নির্দিষ্ট মাত্রা আছে। কিন্তু নির্দিষ্ট মাত্রার থেকে কম বা বেশি হরমোন উৎপাদিত হলে

শ’রীরে নানা রকম বিরূপ প্র’ভাব পড়তে শুরু করে। থাইরয়েড হরমোন কম উৎপন্ন হলে বলা হয় হাইপোথাইরয়েডিসম এবং বেশি উৎপন্ন হলে বলা হয় হাইপারথাইরয়েডিসম। এগুলো অন্যসব সাধারণ রো’গের মতও নয়। কারণ এর লক্ষণগুলো খুব ধীরে ধীরে প্র’কাশ পায়। এ জন্যই

বেশির ভাগ মানুষ বুঝে উঠতে পারে না যে সে এই রো’গটি বহন করছে। থাইরয়েডের এই স’মস্যায় টিউমা’র কিংবা ক্যা’ন্সার পর্যন্তও হতে পারে। কিন্তু কী ভাবে বুঝবেন আপনার শ’রীরে থাইরয়েড বাসা বাঁধছে? এর প্রাথমিক অব’স্থায় কিছু লক্ষণ প্র’কাশ পায়, তা দেখে সহজেই চিকি’ৎসকের স্মরণাপন্ন হতে পারবেন। এবার সে লক্ষণগুলো জে’নে নেওয়া যাক-

1. ওজনে পরিবর্তন: হ’ঠাৎ করেই কোন কারণ ছাড়া ওজন বেড়ে যাওয়াটা হাইপোথাইরয়েডিসমের ফলে হতে পারে। খাওয়ার পরিমাণ না বাড়ানো সত্ত্বেও হ’ঠাৎ করে ওজন পরিবর্তিত হলে থাইরয়েড হরমোনের পরীক্ষা করানো উচিত। একই ভাবে যাদের হ’ঠাৎ করেই ওজন কমে যায়, তাদেরও হাইপারথাইরয়েডিসম থাকার আশ’ঙ্কা রয়েছে।
2. অতিরি’ক্ত দু’শ্চিন্তা: সারাক্ষণ অতিরি’ক্ত দু’শ্চিন্তা হাইপারথাইরয়েডিসম-এর লক্ষণ হতে পারে। শ’রীরে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি থাইরয়েড হরমোন তৈরি হলে সারাক্ষণ অস্থির ভাব এবং বিশ্রামহীন বোধ হতে পারে। এই স’মস্যা দেখা দিলে পরীক্ষা করে নি’শ্চিত হওয়া প্রয়োজন হাইপারথাইরয়েডিসম স’স্পর্কে।

3. চুলের স’মস্যা:হাইপোথাইরয়েডিসম হলে অতিরি’ক্ত চুল পড়া, চুলের বৃ’দ্ধি কমে যাওয়ার মতো একাধিক স’মস্যা দেখা দিতে পারে। হাইপো থাইরয়েডিসম হল শ’রীরের প্রয়োজনের তুলনায় কম থাইরয়েড হরমোন তৈরি হওয়া। তাই চুলে স’মস্যা দেখা দিলে দ্রুত চিকি’ৎসকের প’রামর্শ নিন।
4.অবসন্নতা: নিয়মিত শ’রীর অবসন্ন লা’গার একটি অন্যতম কারণ হতে পারে হাইপোথাইরয়েডিসম। সারা রাত পর্যাপ্ত ঘুমানোর পরেও যদি সকালে অবসন্ন লাগে অথবা সারাদিন ধ’রে ঝিমুনি আসে তাহলে থাইরয়েড হরমোন ঠিক মতো কাজ করছে কিনা তা পরীক্ষা করে নি’শ্চিত হওয়া উচিত।

5. ত্বকের উপর প্র’ভাব: হাইপোথাইরয়েডিসমের কারণে ত্বক অতিরি’ক্ত শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। এর কারণে ঘাম কম হয় এবং ত্বক প্রয়োজনীয় আদ্রর্তা পায় না। এর ফলে ত্বক অতিরি’ক্ত শুষ্ক হয়ে যায়। হাইপোথাইরয়েডিসমের রো’গীদের মধ্যে নখ ভাঙ্গার বা নখে ফাটল ধ’রার প্র’বণতাও থাকে।
6. গলার স্ফীতি: থাইরয়েড হরমোনের অভাবে অর্থাৎ হাইপোথাইরয়েডিসমের কারণে গলা ফুলে উঠতে পারে। গলায় হাত দিয়ে কোন অস্বা’ভাবিক ফোলা ভাব মনে হলে দ্রুত চিকি’ৎসকের প’রামর্শ নিন। এ ছাড়া থাইরয়েড হরমোনের অভাবে গলার স্বর কিছুটা কর্কশ বা গম্ভির হয়ে যেতে পারে। থাইরয়েড রো’গের এই লক্ষণগুলো স’স্পর্কে সচে’তন থাকা জ’রুরি। কেননা এ থেকেই শ’রীরে বাসা বাঁধতে পারে বড় কোন রো’গ।

About Susmita Roy

Check Also

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

আজকাল বেশিরভাগ মহিলাই মহিলাদের হাঁটু ব্যথার অভিযোগ করেন। সে বাড়িতে থাকুক বা কর্মজীবী ​​নারী। আজকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.