মাত্র ৭ দিনে চোখের ভ্রু ও পাপড়ি ঘন কালো এবং লম্বা করার উপায়!

আমাদের চেহারার সৌন্দর্য অনেকাংশে নির্ভর করে চোখের ভ্রুর ওপর। আর যাদের ভ্রু ঘন এবং কালো তাদের চেহারার সৌন্দর্য এবং মাধুর্য তত বেশি। আমাদের অনেকরেই ভ্রু ঘন এবং কালো নয়। তাই চেহারার সৌন্দর্যের প্রশ্ন অনেকেই হীনমন্যতায় ভোগে। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে চোখের ভ্রু ঘন এবং

কালো করার কি কোন উপায় আছে? চোখের ভ্রু কাটলে কি হয় তাহলে জেনে নিন বন্ধুরা অবশ্যই আছে।। আমরা এই কলামটি সাজিয়েছি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে কিভাবে আপনার ভুল করবেন ঘন এবং কালো। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক ভ্রু কালো করার সহজ এবং প্রাকৃতিক উপায় গুলো। চলুন তবে দেখে নেওয়া যাক- চোখের ভ্রু ঘন এবং কালো করার কার্যকরী উপায় সমূহঃ 1. ডিমঃ ঘন এবং

কালো ভ্রু পেতে ডিমের খোসা ছাড়িয়ে কুসুম ফেলে দিয়ে ডিমের সাদা অংশ ভ্রুর উপরে গুড়ো করে মালিশ করে দিন।এরপর 20 মিনিট অপেক্ষা করে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। ডিমে থাকা প্রোটিনের শক্তি ভ্রু কালো এবং ঘন করে তোলে। 2. মেথির গুড়াঃ দীর্ঘসময় মেথি ভিজিয়ে গুঁড়ো করে নিন। তারপর চোখের ভ্রুতে লাগিয়ে দিন। 40 থেকে এক ঘন্টা পরিমাণ সময় দিয়ে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। মেথির গুনাগুন আপনার ভ্রুকে করে তুলবে কাল এবং ঘন। মেথি নতুন ভ্রু জন্মাতে সাহায্য করে। 3. অ্যালোভেরাঃ চুল কালো

এবং ঘন করতে এলোভেরা জেল এর গুরুত্ব অপরিসীম। অ্যালোভেরা পাতা কেটে নিয়ে চামচ বা আঙুলের সাহায্যে অ্যালোভেরার রস বের করে নিন। তারপর ভালোভাবে জেল গুলো পেস্ট করে নিয়ে। চোখের ভ্রুতে লাগিয়ে দিন শুকানোর জন্য 15 থেকে 20 মিনিট সময় দিন এবং পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 5. লেবুর রসঃ লেবুর রস ভ্রু কালো করতে এবং নতুন ভ্রু জন্মাতে, ভ্রু ঘন এবং মসৃণ করতে অত্যন্ত উপকারী। এক টুকরো লেবুর রস ভ্রুতে ভালোভাবে ঘষে নিন এবং 20 মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

লেবুর রস সাধারণত রাতে লাগালে ভাল ফলাফল পাবেন। 6. তেল এবং লেবুর মিশ্রণঃ অপরিশোধিত নারিকেল তেল একটি পরিষ্কার বাটিতে নিয়ে তাতে লেবুর কয়েকটি টুকরা কুচি কুচি করে দিয়ে সপ্তাহখানেক ফেলে রাখুন। এরপর প্রতি রাতে মিশ্রণটি তুলো বা নরম কিছুর সাহায্যে মালিশ করুন। এটি ব্যবহারে খুব শীঘ্রই আপনার ভ্রু ঘন এবং কালো হয়ে উঠবে। 7. পেঁয়াজের রসঃ ভ্রু কালো এবং ঘন করতে পেঁয়াজের রস অত্যন্ত উপযোগী। পেঁয়াজে থাকা বিদ্যমান উপাদানগুলো। যেমন ভাইটামিন, সালফার, মিনারেলস ইত্যাদি নতুন ভ্রু

গজাতে সাহায্য করে। এর ফলে আপনার ভ্রু হয়ে ওঠে ঘন এবং কালো। পেঁয়াজ ভালোভাবে কেটে তার রস বের করে নিয়ে আপনার ভ্রুতে লাগান। এবং কিছু সময় পর। পরিষ্কার করে নিন। 8. ময়েশ্চারাইজ করাঃ ভ্রু ময়েশ্চারাইজ করা থাকলে ব্রুর কোষের শক্তি বৃদ্ধি পায়। এর ফলে দ্রুত বৃদ্ধি পায় যার দরুন ভ্রু হয়ে ওঠে ঘন এবং কালো। তাই দিনে দুই থেকে তিনবার ভ্রু মশ্চারাইজ করুন। 9. ভ্রু পরিষ্কার রাখাঃ ভ্রুর গোড়ালির ত্বকে ময়লা জমে থাকলে ভ্রুর সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায় এবং এটি উজ্জ্বলতা হারায়। সেই সাথে নতুন ভ্রু

গজানোর পথ বন্ধ হয়ে যায়। তাই ভ্রু নিয়মিত পরিষ্কার রাখুন। 10. তেলের ব্যবহারঃ মাথার চুল বৃদ্ধির জন্য যেমন তেলের ব্যবহার করা হয় ঠিক তেমনি ভ্রু বৃদ্ধির জন্য তেল ব্যবহার করতে পারেন। এতে আপনার ভ্রু হয়ে উঠবে কাল এবং ঘন। 11. অলিভ অয়েল এবং ক্যাস্টর অয়েলঃ ভ্রু কালো করতে এবং জোর ঘনত্ব বৃদ্ধিতে অলিভ অয়েল এবং ক্যাস্টর অয়েল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিটিতে রয়েছে ভিটামিন ই যা আপনার ভ্রুকে সবসময়ই ময়েশ্চারাইজড করবে। তাই প্রতি রাতেই ভ্রুতে ক্যাস্টর অয়েল বা অলিভ অয়েল লাগিয়ে শুয়ে

পড়ুন এবং সকালে উঠে ধুয়ে নিন। এতে আপনার ভ্রু হবে কাল এবং ঘন। চুলের গোঁড়া শক্ত করতে অলিভ অয়েল ও আমলকী। 12. দুধ এবং লেবুঃ তুলো দিয়ে ভ্রু তে দুধ লাগিয়ে নিন এরপর 20 থেকে 25 মিনিট সময় দিয়ে তাতে লেবুর রস ঘষে ভ্রু পরিষ্কার করে নিন। ভ্রু কালো এবং ঘন করতে কিছু উল্লেখযোগ্য বিষয়ঃ ভ্রুর ত্বক সবসময় পরিষ্কার রাখুন। সব সময় মশ্চারাইজ থাকার জন্য ভ্যাসলিন বা

ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। প্রতিদিন এই তরল জাতীয় খাবার খান। ত্বক ময়শ্চারাইজ করার উপায় খাদ্যতালিকায় জিংক এবং ক্যালসিয়াম অবশ্যই রাখবেন। নিয়মিত ভ্রু আঁচড়াবেন। ভ্রু সম্পূর্ণ কালো এবং ঘন করতে আমাদের আলোচিত বিষয় সমূহ অনুসরণ করুন। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে ঘরে বসেই নিজের ভ্রুর যত্ন নিন। হয়ে উঠুন ঘন কালো মসৃণ ভ্রু এবং সুন্দর চেহারার অধিকারী।

About Susmita Roy

Check Also

ঘাড়ের ট্যান ও কালো দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়!

ঘাড়ের ট্যান ও কালো দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়!

আবহাওয়ার পরিবর্তন এবং দীর্ঘক্ষণ ঘরের বাইরে থাকার কারণে ত্বকে অত্যধিক ট্যান পড়ে যায়। ট্যানের ফলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *