মাত্র ৫ মিনিটেই ঝড়বে পেটের মেদ! অবিশ্বাস্য হলেও সত্য..

পেটের বাড়তি মেদ নিয়ে কম বেশি সবাই চিন্তায় থাকেন। আর এর থেকে রক্ষা পেতে অনেক চেষ্টাও করেন। যা সব সময় কাজে আসে না। এই সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য সুখবর নিয়ে আসলেন ড. জাহাঙ্গীর কবির। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন খুবই পরিচিত মুখ ড.

জাহাঙ্গীর কবিরের। যিনি একজন ফ্যামিলি মেডিসিন, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা এবং শ্বাস-রোগ বিশেষজ্ঞ। তিনি সুস্বাস্থ্যের জন্য নানা উপায় বলে থাকেন। ড. জাহাঙ্গীর কবিরের পরামর্শ অনুযায়ী মাত্র পাঁচ মিনিটেই কমবে পেটের মেদ। বলতে পারেন ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে কমাতে পারবেন পেটের

মেদ। তবে সেটা কখন, কীভাবে করবেন আসুন জেনে নেয়া যাক- হিট এক্সেসাইজ করুন এই ব্যায়ামটি করতে হবে সকালে। এর জন্য উত্তম সময় হচ্ছে সকাল ৬ টা থেকে ৭ টার মধ্যে। এসময় শরীর প্রাকৃতিক ভাবেই স্টোরেজটা বেশি থাকে। হিট এক্সেসাইজ করার সময় শরীরে

স্টোরেজ রিলিজ হয়। আর এই স্টোরেজ শরীরের জন্য উপকারী। তবে এই স্টোরেজ কি পরিমাণ রিলিজ হচ্ছে, কতক্ষণে রিলিজ হচ্ছে, কি পরিমাণ শরীরে থাকছে সেটা জানা জরুরি। যেহেতু প্রাকৃতিকভাবেই সকালে শরীরে স্টোরেজ বেশি থাকে, তাই ব্যয়ামটা সে সময় করলে বেশি উপকার হয়। হিট এক্সেসাইজ করলে আরো কিছু সুবিধা পাওয়া যায়।

চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো-
এই ব্যায়াম মাসেলকে পির্জাভ করবে কিন্তু ফ্যাট বার্ন করে। শরীরে খুবই দরকারি হচ্ছে গ্রোর্থ হরমোন। যেটা বাচ্চাদের প্রচুর পরিমাণ থাকে। যার কারণে তারা প্রচুর দুষ্টমি করে কিন্তু ক্লান্ত হয় না। তবে বয়সের সঙ্গে সঙ্গে এটা আস্তে আস্তে কমে যায়।এই কারণে এটাকে যদি আমরা উন্নত করতে পারি, তাহলে এটা আমাদের চর্বি গলাতে সহায়তা করে। তবে মাসেলটাকে পির্জাভ করে।হিট এক্সেসাইজ করলে ঘুম ভালো হয়।

তাই খালি পেটে ঘুমাতে যান। মানে ৭ থেকে ৮টার মধ্যে ঘুমাতে যান। এরপর সকালে যখন খালি পেটে হিট এক্সেসাইজ করবেন, তখন শরীরে ইনসুলিনের মাত্রাটা কম থাকবে। আর শরীরে ইনসুলিন কম থাকলে ফ্যাট কমতে সহজ হয়। তখন ইনসুলিনের সাহায্য ছাড়াই গ্লোকোজটা রক্ত থেকে সরাসরি কোষে ঢুকতে পারে। তবে লিভারের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা ভিন্ন। যেভাবে হিট এক্সেসাইজ করবেন প্রথমে ওয়ার্মআপ এক্সেসাইজ করুন।

কারণ এটি অনেক হাই ইনটেনসিটিতে করতে হয়। এটা রানিং মেশিনে এবং সাইকেলে করতে পারেন। অথবা দৌড়ানো যেতে পারে। তবে দৌড়ানোর আগে জগিং করে নিতে হবে। শরীরটাকে ভালো করে ওয়ার্মআপ করে নিতে হবে। এরপর যত জোরে পারেন দৌড়াতে হবে। মাত্র ২০ সেকেন্ড দৌড়ানোর পর ১০ সেকেন্ড রেস্ট নিতে হবে। আবার ২০ সেকেন্ডে দৌড় দেয়ার পর ১০ সেকেন্ড রেস্ট নিতে হবে। এভাবে ৩

থেকে ৫ মিনিট ব্যায়াম করতে হবে। তবে সময় কম বেশি হতে পারে। এভাবে শরীরে গ্রোর্থ হরমোন বেড়ে যাবে। কিন্তু এই গ্রোর্থ হরমোন শরীরে ৪৮ ঘণ্টার বেশি সময় থাকে না। পাঁচ মিনিট এভাবে করুন। এর ফলে খুব দ্রুত পেটের মেদ কমতে শুরু করবে। এই পদ্ধতিতে পেটের চর্বি, প্রেসার, রক্তনালীর চর্বি এবং ডায়াবেটিস একইভাবে কমানো সম্ভব। তাই আজ থেকেই শুরু করুন।

About Susmita Roy

Check Also

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

আজকাল বেশিরভাগ মহিলাই মহিলাদের হাঁটু ব্যথার অভিযোগ করেন। সে বাড়িতে থাকুক বা কর্মজীবী ​​নারী। আজকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.