ব্রিটিশদের আগমনের আগে ঘরে ঘরে চা ছিল না, বারবার চা পানের কুফল জেনে নিন

মাত্র 200 বছর আগে পর্যন্ত ভারতীয় পরিবারে চা ছিল না। আজ যে কেউ বাড়িতে এলে অতিথিকে প্রথমে চা চায়। এই পরিবর্তন ব্রিটিশদের কারণে। অনেকে সারাদিন অফিসে চা খেতে থাকেন, এমনকি রোজার সময়ও চা খান। আপনি যদি কোন ডাক্তারের কাছে যান, তিনি

আপনাকে ম’দ, সি’গারেট এবং তা’মাক ছেড়ে দিতে বলবেন, কিন্তু চা নেই। তবে ভালো ডাক্তারের কাছে গেলে তিনি প্রথমেই পরামর্শ দেবেন চা না খাওয়ার। সবুজ চা পাতা পানিতে সিদ্ধ করে পান করলে কোনো ক্ষতি নেই, কিন্তু যেখানে তা গাঁ’জন করে কালো হয়ে যায়, সেখানেই সব

মন্দ চলে আসে। জামশেদপুরের আয়ুর্বেদ ও প্রাকৃতিক চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ সীমা পান্ডে বলেছেন যে প্রত্যেক মানুষেরই জানা উচিত বারবার চা পানের ক্ষতিকর দিকগুলো। আসলে, চা ভারতের মতো দরিদ্র দেশের জন্য নয়। এটা ব্রিটিশদের জন্য, কিন্তু তারা প্রথমে বিনামূল্যে চা পান

করে আমাদের এতে অভ্যস্ত করে তুলেছিল। আমাদের গরমের দেশে চা আর গরম বাড়ায়, পিঠা বাড়ায়। চা খেলে শরীরে বিদ্যমান ভিটামিন নষ্ট হয়ে যায়। এর সেবনে স্মৃতিশক্তি দুর্বল হয়ে পড়ে।

জেনে নিন বার বার চা পান করার কুফল:
চা খেলে লিভারে খারাপ প্রভাব পড়ে। চা খাওয়া রক্তের প্রকৃত তাপ ইত্যাদি অপসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দুধ থেকে তৈরি চা খেলে পাকস্থলীতে খারাপ প্রভাব পড়ে এবং পরিপাকতন্ত্রের ক্ষতি করে। চায়ে পাওয়া ক্যাফেইন হার্টের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে, তাই অতিরিক্ত চা খাওয়া অনেক সময় হৃদরোগ ঘটাতে সহায়ক। চায়ে ক্যাফেইনের পরিমাণ ৬ শতাংশ, যা রক্তকে দূষিত করে এবং শরীরের উপাদানগুলোকে

দুর্বল করে। চা পান করলে রক্ত ​​নোংরা বা দূষিত হয় এবং মুখে লাল ব্রণ বের হয়। যারা প্রচুর চা পান করেন তাদের অন্ত্রের উত্তর পেয়ে যায়। কোষ্ঠকাঠিন্য মলত্যাগ করা কঠিন করে তোলে। চা পান করলেও ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। চা স্নায়বিক ব্যাঘাত, দুর্বলতা এবং পেটে গ্যাস সৃষ্টি করে। চা পান করলে অনিদ্রার অভিযোগও বেড়ে যায়। চা স্নায়বিক ব্যাঘাত ঘটায়। চায়ে পাওয়া ইউরিক অ্যাসিডের কারণে মূত্রাশয় বা

মূত্রনালী দুর্বল হয়ে যায়, যার ফলে চা খাওয়া ব্যক্তির ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যা দেখা দেয়। এতে দাঁতের ক্ষতি হয়। রেলওয়ে স্টেশন বা চায়ের স্টলে বিক্রি হওয়া চা খাওয়া না করলে ভালো হয় কারণ তারা অনেক সময় পাত্র পরিষ্কার না করেই তাতে চা তৈরি করে থাকে, যার কারণে চা অনেক সময় বিষাক্ত হয়ে যায়। চা আবার গরম করার পর পান না করলে ভালো হয়। বাজারের চা প্রায়ই অ্যালুমিনিয়ামের পাত্রে ঢেলে তৈরি

করা হয়। চা ছাড়াও এই অ্যালুমিনিয়াম দ্রবীভূত হয় এবং পাকস্থলী নষ্ট করতেও কম ভূমিকা রাখে না। অনেক সময় আমরা অবশিষ্ট চা থার্মসে রাখি, তাই দীর্ঘক্ষণ থার্মসে রাখা চা খেতে ভুলবেন না। যতটা সম্ভব চা পাতা সিদ্ধ করুন এবং চা তৈরি হয়ে গেলে ব্যবহৃত চা পাতা ফেলে দিন। শরীর যখন আয়রন শোষণ করে না তখন অ্যানিমিয়া হয়। এতে উপস্থিত ক্যাফেইন আসক্তি সৃষ্টি করে। নেশা সবসময় খারাপ। খুব বেশি

চা পান করলে সুখ আসে। অন্ত্রের পেশীও শক্ত হয়ে যায়। প্রতি কাপ চায়ের সাথে এক বা একাধিক চা চামচ চিনি বা চিনি গ্রহণ করা হয়, যা ওজন বাড়ায়। প্রায়শই লোকেরা চায়ের সাথে নোনতা, নোনতা বিস্কুট, ডাম্পলিং ইত্যাদি গ্রহণ করে। এটি একটি বিরোধী খাদ্য। এটি চর্মরোগের কারণ চা খেলে ক্ষুধায় মৃত্যু হয়, মন শুকিয়ে যেতে থাকে, মলদ্বার ও মলদ্বার আলগা হয়ে যায়। ডায়াবেটিসের মতো রোগ আছে। ঘুমের

কারণে যে কৃত্রিম শক্তি দেখা দেয় তা মনের শুষ্কতায় উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া বড় ভুল। উৎসাহের অজুহাতে চা-কফির ধ্বংসাত্মক নেশায় ধরা পড়া মানুষ হারিয়ে যাওয়া জুয়াড়িদের মতো নেশার গভীরে ডুবে যায়। তারা শরীর, মন, মন ও ঘামের উপার্জন নষ্ট করে ভয়ানক রোগের শিকার হয়।

About Susmita Roy

Check Also

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

যে কারনে মহিলাদের হাঁটুর সমস্যা বেশি হয়!

আজকাল বেশিরভাগ মহিলাই মহিলাদের হাঁটু ব্যথার অভিযোগ করেন। সে বাড়িতে থাকুক বা কর্মজীবী ​​নারী। আজকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.